মেসির ইসরায়েলে খেলতে না যাওয়ার আসল কারণ তবে এই!

ফিলিস্তিনের সঙ্গে ইসরায়েলের রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের মুহূর্তে আর্জেন্টিনা ইসরায়েলে বিশ্বকাপ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে না যাওয়ায় চারিদিকে ধন্য ধন্য পড়ে গেছে। ফিলিস্তিনিদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ইসরায়েলের নির্যাতনের বিরুদ্ধে এটা মেসি ও আর্জেন্টিনার প্রতিবাদ। কিন্তু ইসরায়েল এবং আর্জেন্টাইন ফুটবল ফেডারেশন বলছে অন্য কথা। তাদের মতে, ফিলিস্তিনি জঙ্গিদল হামাসের কাছ থেকে খুনের হুমকি পেয়েছিলেন মেসিসহ কয়েকজন ফুটবলার! যে কারণে এই সফর বাতিল করা হয়েছে।

বিশ্বকাপের আগে ইসরায়েলের বিপক্ষে ম্যাচটাই ছিল আর্জেন্টিনার শেষ প্রস্তুতি ম্যাচ। ভেস্তে যাওয়া ওই প্রস্তুতি ম্যাচ নিয়ে বিতর্ক থামছেই না। ইজরায়েলের ক্রীড়া ও সংস্কৃতিমন্ত্রী মিরি রেগেভ বলেছেন, ‘মোটেই রাজনৈতিক চাপে ম্যাচ থেকে সরে যায়নি আর্জেন্টিনা। ওরা খেলেনি শুধু মাত্র লিয়োনেল মেসিকে প্যালেস্তাইনের সন্ত্রাসবাদীরা খুনের হুমকি দেওয়ায়। এই হুমকিতে মহাতারকা ফুটবলার ও তার পরিবার ভয় পেয়েছিলেন।’

আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট ক্লদিও তাপিয়াও কিন্তু ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ইজরায়েলের মন্ত্রীর সুরেই কথা বলেছেন। তার ভাষায়, ‘সামগ্রিক পরিস্থিতি বিচার করেই ম্যাচ খেলা সম্ভব হয়নি। ইজরায়েলের মানুষের বিরুদ্ধাচরণ করতে এমন সিদ্ধান্ত নেয়নি আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশন। আশা করি ব্যাপারটাকে বিশ্বশান্তির নিরিখে নেওয়া সিদ্ধান্ত হিসেবে ধরা হবে।’

মেসিকে যে খুনের হুমকি দেওয়া হচ্ছিল তা স্বীকার করে আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশনের এক কর্মকর্তাও বলেছেন, হুমকিটা দিচ্ছিল প্যালেস্তাইনের জঙ্গি গোষ্ঠী হামাস। এছাড়া ফিলিস্তিনি ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের এক কর্মকর্তাও কদিন আগে মেসির জার্সি পোড়ানোর আহ্বান জানিয়েছিলেন। এসব কারণে নাকি শংকায় পড়ে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা।

শোনা যাচ্ছিল, ফিফার কাছে নাকি ইজরায়েলের জাতীয় ফুটবল সংস্থা আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে নালিশ জানিয়েছে। এটাও শোনা গিয়েছিল, আর্জেন্টিনাকে বিশ্বকাপ থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্যও নাকি চাপ দিচ্ছে তারা। পরে অবশ্য সে কথা অস্বীকার করে ইজরায়েল। তাদের বক্তব্য, আর্জেন্টিনাকে কোনো দোষ দেওয়া হয়নি; বরং তারা যে কারণে খেলতে পারেনি সেটাই ফিফার কাছে তুলে ধরা হয়েছে।

ইজরায়েল ফুটবল সংস্থার এক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘ফিফাকে আমরা শুধু বলেছি প্যালেস্তাইনের জঙ্গি গোষ্ঠীর হুমকির জন্যই মেসিরা খেলতে আসেননি। এটা আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে নালিশ নয়। ওদের কোনো দোষ নেই। ফিফা আমাদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, ঘটনার তদন্ত হবে। এই ম্যাচ বাতিল হওয়ায় কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হল। আরও বড় কথা, আমাদের হাজার হাজার ফুটবলপ্রেমী মেসিদের খেলা দেখা থেকে বঞ্চিত হল। এটা খুবই দুঃখজনক।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*