ঘন ঘন পিঠে, কোমরে ব্যথা হচ্ছে? পঙ্গু হওয়ার আগেই প্রতিরোধ করতে যা করবেন

ঘন ঘন পিঠে- ঘন ঘন পিঠে, কোমরে ব্যথা হচ্ছে? যদি এই সমস্যায় পড়ে থাকেন তাহলে খুব তাড়াতাড়িই ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন। আপনি ভুগতে পারেন অস্টিওপোরোসিসে। এটি হাড়ের একটি বিশেষ রোগ। পুরুষের চেয়ে নারীরাই এই রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে বেশি। তবে আগে থেকে লক্ষণ জানা থাকলে এই রোগটি প্রতিরোধ করা সম্ভব।অস্টিওপোরোসিসের লক্ষণ: অস্টিওপোরোসিস নিঃশব্দে ক্ষতি করে। তাই প্রথম থেকে লক্ষণ বোঝা মুশকিল।

তবুও সব সময় সজাগ থাকুন। ঘন ঘন পিঠে ব্যথা হলে, পেশীতে যন্ত্রণা হলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।দাঁতে ক্ষত হলে কিংবা কম সময়ের ভেতর অস্বাভাবিকভাবে ওজন কমে গেলে সতর্ক হওয়া উচিত। বিশেষ করে শিরদাঁড়ায় আকারগত পরিবর্তন হলে বা ব্যথা হলে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।যাদের অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি বেশি:যাদের বয়স ৪০ এর বেশি তাদের অস্টিওপোরোসিস হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

বিশেষ করে নারীদের মনোপজের পর শরীর থেকে এস্ট্রোজেন হরমোন কম নিঃসৃত হয়। ফলে হাড় দুর্বল হয়ে পড়ে। তখন এই অসুখ হবার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।পরিবারের কারও, বিশেষ করে মায়ের যদি এই রোগ থাকে তাহলে এই অসুখ সন্তানদের হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যারা রোদে কম বের হন তাদেরও এই অসুখ হতে পারে।রোগা ও কম উচ্চতার নারীদের শরীরের হাড় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দুর্বল হয়। ফলে অস্টিওপোরোসিস হবার সম্ভাবনাও বেশি থাকে।যারা ক্যাফেইন বা অ্যালকোহল গ্রহণ করেন, তাদের এই রোগ হতে পারে। কারণ, ক্যাফেইন ও অ্যালকোহল শরীর থেকে ক্যালসিয়াম কমিয়ে দেয়। ফলে হাড় দুর্বল হয়ে পড়ে।

প্রতিরোধে করণীয়: পায়ের পাতা, হিপ বোন বা মেরুদণ্ডে ব্যথা হলে অবহেলা না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। সামান্য ব্যথা হলেও ফেলে রাখবেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নিয়মিত ভিটামিন ‘ডি’ ও ক্যালসিয়াম খান। নিয়মিত শরীর চর্চা করুন। খাবারের তালিকায় প্রচুর পরিমাণে সবুজ শাকসবজি, ফল, ডাল, দুধ ও দুধ জাতীয় খাবার রাখুন।

ঘুমের মধ্যে পায়ের পেশিতে টান লাগলে কী করবেন ?রাতে বিছানায় ঘুমিয়ে আছেন, হঠাৎ পায়ের পেশিতে টান, প্রচণ্ড ব্যথায় ঘুম ভেঙ্গে যায়। এমন ঘটনা প্রায়ই ঘটে অনেকেরই। ব্যাথার কারণে পা সোজা বা ভাঁজ করা যায় না তখন। তবে বেশিরভাগ সময়ই ঘুম বা বিশ্রামের সময় এমনটা ঘটে বেশি।পেশিতে টান লাগলে পায়ের নিদির্ষ্ট একটা জায়গা শক্ত হয়ে যায় কিছু সময়ের জন্য।পা নড়াচড়া করতে না পারলে অনেকে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। বিশেষ করে গর্ভবতী এবং বয়স্করা এই সমস্যায় বেশি পড়েন।

এই অবস্থা কয়েক মিনিটের জন্য স্থায়ী হয়,তবে ব্যথাটা সারাদিন থাকতে পারে। পেশিতে এমন টান লাগার নির্দিষ্ট কোন কারণ থাকে না। তবে কোন কোন সময় বেকায়দায় শোয়ার কারণে হয়।কখনো কখনো এই সমস্যা ডায়বেটিস এবং বিভিন্ন ধরনের আর্থাইটিস রোগের ইঙ্গিত বহন করে। আবার অতিরিক্ত মাদকাশক্তি,ড্রিহাইড্রেশন, ডায়বেটিস থাকলেও এমনটা হতে পারে।এক গবেষণায় দেখা গেছে, ৬০ বছরের পর প্রতি তিনজনের একজন পায়ের পেশী খিচে ধরা বা টান লাগা সমস্যায় ভোগেন।

এছাড়া গর্ভবতী নারীদের মধ্যেও এই সমস্যা বেশি। কী করবেন তখন? বিশেষজ্ঞরা পেশিতে হঠাৎ এমন টান লাগলে আতঙ্কিত না হয়ে কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করার পরামর্শ দিয়েছেন। যদি কারো হাঁটুর নিচে পায়ের পিছনের পেশিতে টান লাগে তাহলে পা সোজা করে হাত দিয়ে পায়ের আঙুলের মাথাগুলো ধরে নিজের দিকে আস্তে আস্তে টানুন। আর যদি সামনের দিকে হয় তাহলে পা ভাঁজ করে পায়ের আঙুলের মাথাগুলো পেছনের দিকে টানুন। ঘন ঘন এরকম হলে পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। এজন্য প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় বেশি পরিমাণে শাকসবজি, ফলমূল,দুধ, মাংস এগুলো রাখা উচিৎ।

অনেক সময় উরুর পেছনেও এমনটা হয়,তখন চিৎ হয়ে শুয়ে পা ভাঁজ করে হাটুঁ বুকের দিকে নিয়ে আসুন যতোটুকু পারা যায়। এসময় উরুর পেছনের পেশিতে আলতো হাতে আস্তে আস্তে মালিশ করলে আরাম পাওয়া যাবে। আর যদি পেশি শক্ত হয়ে আসে তখন ওয়াটার ব্যাগ বা হট ব্যাগের মাধ্যমে কিছুক্ষণ গরম সেঁকা দিন আক্রান্ত পেশিতে। যদি পেশি বেশি নরম ও ফুলে যায় আর ব্যথা থাকে তাহলে তাতে আইসব্যাগ দিয়ে ঠাণ্ডা সেঁক দিন। বেশ আরাম পাবেন। বাড়িতে যদি ব্যথানাশক কোন বাম বা জেল থাকে,তা দিয়ে আস্তে আস্তে মালিশ করলে কিছুটা স্বস্তি পাওয়া যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*