প্রথম বলটা পুরো আল্লাহর ওপর ছেড়ে দিয়েছিলাম

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে সাকিব আল হাসানের ফেরাটা ছিল অনেকটা বিস্ময়ের। মাস দেড়েক আগেও আঙুলের চোট যে অবস্থায় ছিল তিনি এখনি ফিরছেন এই প্রত্যাশা ছিল কম। দ্রুত সেরে উঠায় নেন মাঠে নামার সিদ্ধান্ত। তবে অপর্যাপ্ত অনুশীলনের কারণে টেস্ট শুরুর আগের দিনও ছিলেন ভাবনায়। সাকিব বললেন প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নামার সময় অনেক স্নায়ুচাপ কাবু করেছিল তাকে।প্রথম দিনে বাংলাদেশের ৩ উইকেট পড়ার পর ব্যাট হাত নামেন সাকিব। উইকেটে গিয়ে আউট হওয়ার আগ পর্যন্ত ব্যাট করেছেন স্বচ্ছন্দেই।

এর আগে ড্রেসিংরুমে নাকি নার্ভাস হয়ে পড়েছিলেন তিনি, ‘ড্রেসিং রুমে অনেক নার্ভাস ছিলাম। তবে যখন মাঠে এসেছি তখন যতটা ভেবেছি ততটা নার্ভাস লাগে নি। আর প্রথম বল পুরো আল্লাহর ওপর ছেড়ে দিয়েছিলাম। খুব ভাগ্যবান ছিলাম।’ চোটের কারণে সাকিবের মূল সমস্যা ছিল ব্যাট ধরায়। কড়ে আঙুলে বোলিংয়ে তেমন ব্যবহৃত হয় না বলে বল করতে তেমন অসুবিধা ছিল না। তবে সমস্যা ছিল ফিল্ডিংয়ে। এই টেস্টের অনুশীলন সেশনগুলোতেও ফিল্ডিংয়ে নড়বড়ে দেখা গেছে তাকে।

৩-০ গোলে হেরে গেল রিয়াল মাদ্রিদ:: পয়েন্ট টেবিলের ১৩ নম্বরে থাকা এইবারের কাছে ৩-০ গোলে হেরেছে রিয়াল মাদ্রিদ। লা লিগায় এটি তাদের পঞ্চম পরাজয়। তাই বলে তিন গোল হজম! শুনতে অবিশ্বাস্যই লাগছে। সান্তিয়াগো সোলারির অধীনে নিজেদের সাদা জার্সির আভিজাত্য ফিরে পেয়ে শুরু করা রিয়াল মাদ্রিদ আবারও ছাইরঙা হয়ে গেল। কোনো পূর্বাভাস ছাড়াই হোঁচট খেল। লা লিগায় আজ নিজেদের ১৩তম ম্যাচে এইবারের সঙ্গে ৩-০ গোলে হেরেছে তারা। এই ম্যাচের আগে এইবার ছিল পয়েন্ট টেবিলের ১৩ নম্বর স্থানে।

তার চেয়েও বিস্ময়ের ব্যাপার হলো, এইবার তাদের ফুটবল ইতিহাসেই লা লিগায় কখনো রিয়ালকে হারাতে পারেনি! প্রথমার্ধে এক গোলের পর দ্বিতীয়ার্ধে আরও দুই গোল হজম করেন সার্জিও রামোসরা। পরিসংখ্যানের বিচারে বলের দখলে মাদ্রিদ এগিয়ে থাকলেও কার্যত নিজেদের মাঠে দুর্দান্ত খেলে ম্যাচটি বের করে নিয়েছে এইবার। একটি করে গোল করেছেন গনজালে এসকালান্তে, সার্গে এনরিচ ও কিকে। অথচ কি দুর্দান্ত ফর্মে থেকেই না আজ মাঠে নেমেছিল করিম বেনজামারা।

আজকের আগে সোলারির অধীনে রিয়াল মাদ্রিদ ম্যাচ খেলেছে চারটা। সে চারটা ম্যাচ তারা জিতেছে তো বটেই, চার ম্যাচের মধ্যে তিন ম্যাচে কোনো গোলও খায়নি, করেছে ১৫টি। করিম বেনজেমা, লুকা মদরিচ, টনি ক্রুস সবাই ফেরার ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন পুরোনো ছন্দে। ভিনিসিয়ুস জুনিয়র, আলভারো ওদ্রিওজোলার মতো নতুন তারকারাও আস্থার জায়গা হয়ে উঠেছিলেন। বিনিময়ে সোলারি পান রিয়ালে পাকা চাকরির চুক্তি। কিন্তু আবার হোঁচট।

১৬ মিনিটে এসকালান্তের গোল নিয়ে প্রথমার্ধে এই ১-০ স্কোরেই শেষ করে রিয়াল। তখনো রিয়াল সমর্থকেরা হয়তো কল্পনাও করেননি, কী দুর্দশা অপেক্ষা করছে সামনে। রিয়াল আসল ধাক্কাটা খায় দ্বিতীয়ার্ধের সপ্তম মিনিটের পরবর্তী ছয় মিনিটে। ৫২ থেকে ৫৭, এই ৬ মিনিটে রিয়ালের জালে আরও দুই গোল জড়িয়ে দেন এনরিচ ও কিকে। এই ধাক্কা সামলে আর ফেরা হয়নি রিয়ালের। মৌসুমের তিন ভাগের এক ভাগেই ৫ ম্যাচ হেরে গেল তারা। অথচ রিয়ালের মতো দল পুরো মৌসুমেই ৫-৬ ম্যাচ হারলেই সেটি বড় খবর।

বার্সেলোনার সঙ্গে এরই মধ্যে তাদের পয়েন্ট ব্যবধান ৪। আজ রাতে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে জিতে গেলে সেই ব্যবধান হয়ে যাবে ৭। অ্যাটলেটিকো জিতলেও রিয়ালের জন্য বিপদ। নগরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে তখন ব্যবধান হয়ে যাবে ৬। আজ রিয়াল সমর্থকেরা তাই বার্সার জয় বা পরাজয় কোনোটাই হয়তো কামনা করবেন না। চাইবেন, ম্যাচটা যেন হয়ে যায় ড্র। বার্সা-অ্যাটলেটিকোর ম্যাচটি আজ রাত পৌনে দুইটায় শুরু হবে।-প্রথম আলো!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*