ছোট্ট ঘরটিতে ঢুকেই কেঁঁদে বুক ভাসালেন নেইমার

0
93

রস্টার নেইমারের জীবন। তখন ছিল শুধু সংগ্রাম আর বেঁচে থাকার প্রবল চেষ্টা। সেই সময়ের স্মৃতিগুলো যদি এক ধাক্কায় হুট করে চোখের সামনে এসে দাঁড়ায়, তাহলে কী অনুভূতি হতে পারে একজন মানুষের?

অনেকেই বলে থাকেন, মানুষ বড় হয়ে গেলে নাকি তাদের অতীত ভুলে যায়। না, নেইমার তার সংগ্রামী জীবনকে ভুলে যাননি। তাই হঠাৎ শৈশবে ফিরে গিয়ে কেঁদে বুক ভাসালেন তিনি। সাও পাওলোর সেন ভিনসেন্তে কেটেছে নেইমারের শৈশব। এত বছর পর সেই বাড়িটি যেন তিনি খুঁজে পেলেন। আসল বাড়িটি নয়; আসলে একটি টেলিভিশন অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি করা হয়েছে নেইমারের প্রথম বাড়ির রেপ্লিকা। সেই ‘নকল’ বাড়িটিতে পা দিয়েই যেন নেইমার ফিরে গেলেন শৈশবে।

নেইমারদের আগের বাড়িটি যেমন ছিল, ঠিক তেমনভাবেই সাজানো হয়েছিল রেপ্লিকা বাড়িটি। তারপর নেইমার ও তার মাকে নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে। তার ছেলেবেলার অনেক স্মৃতিই ধরে রাখা হয়েছে সেখানে। যেসব শটস পরে সেই বেলায় ছোট্ট ছেলেটি খেলেছে, সেগুলো সাজিয়ে রাখা পরম যত্নে। ট্রফি কেসে রাখা তার তখনের অর্জন করা ট্রফিগুলো। এসব স্মৃতি দেখে আর সহ্য করতে পারেননি নেইমার। বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার, প্রতিপক্ষ রক্ষণের জন্য মূর্তিমান আতঙ্ক মাকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন!

এই অনুষ্ঠানটি তৈরি করা হয়েছিল নেইমার যখন পায়ের মেটারসালের ইনজুরিতে দীর্ঘ সময় মাঠের বাইরে ছিলেন। নেইমারের বাবা-মা এবং বোন টিভি প্রযোজককে সহায়তা করেছেন তার পুরোনো বাড়িটি বানাতে। পরিবারের পুরোনো ছবি থেকে আগের বাড়িটি সম্পর্কে ভালো ধারণা পাওয়া গেছে। গত শনিবার নেইমাররা যখন অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের প্রস্তুতি নিচ্ছিল, তখন ব্রাজিলে প্রচারিত হয় অনুষ্ঠানটি। এমন চমৎকার একটি আইডিয়া আনার জন্য টিভি চ্যানেলটিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ব্রাজিল সুপারস্টার।
==
হাস্যোজ্জ্বল সালাহ পা রাখলেন রাশিয়ায়

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে ইনজুরিতে পড়লেও বিশ্বকাপে মিশর জাতীয় দলে সুযোগ পান মোহাম্মদ সালাহ। তবে তার খেলা নিয়ে গুঞ্জন এখনও সর্বত্র। কিন্তু এসবের মাঝে দলের সাথে রাশিয়ায় পৌঁছালেন সালাহ। বিমানে চড়ে রাশিয়া যাওয়ার সময়ের ছবি সামাজিক মাধ্যম টুইটার ও ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন তিনি। ছবিতে দলের অন্যান্য সতীর্থদের সাথে হাসিমুখেই দেখা গিয়েছে সালাহকে।

২৮ বছর পর বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে মিশর। তাই এবারের বিশ্বকাপ নিয়ে মিশরের স্বপ্ন অনেক বড়। সাথে যোগ হয়েছে সদ্যই পার করে আসা সালাহর দুর্দান্ত পারফরমেন্সের মৌসুম। ইংলিশ লিগে লিভারপুলের হয়ে ৩২টি গোল করেছেন তিনি। ইংলিশ লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতা তিনিই। ফুটবল রাইটার্স এসোসিয়েশনের বর্ষসেরা ও প্রফেশনাল ফুটবলার অ্যাসোসিয়েশনের (পিএফএ) সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন সালাহ।

এছাড়া প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ইংলিশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের এক মৌসুমে তিনবার ‘প্লেয়ার অব দ্য মান্থ’ এর পুরস্কার জিতেন সালাহ। তবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের সার্জিয়ো রামোসের আঘাতে ইনজুরিতে পড়ায় বিশ্বকাপের সালাহর খেলা নিয়ে এখনও সংশয় রয়েছে।

এই নতুন সেনসেশনকে খেলানোর ব্যাপারে ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন মিশর ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের বোর্ড সদস্য খালিদ লতিফ। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি প্রথম ম্যাচের শুরুর লাইন আপে থাকবে না সে। তবে ম্যাচের যেকোন সময় নামতে পারে সে। কারণ সে দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠেছে। রাশিয়ায় মিশরের প্রথম অনুশীলনে দেখা যাবে সালাহকে।’

বিজ্ঞাপন...

কবিরাজ: তপন দেব ।

নারী-পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়।

আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন - ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ - রাত ১১ )

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here